বিজ্ঞাপন
default-image

সেখান থেকে চলে যান তত্কালীন পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে। সেখানকার এক স্কুলে আর্টের শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। অনেক নামীদামি শিল্পীর সঙ্গে সুলতানের পরিচয় হয় তখন। লাহোর ও করাচিতে দুটি প্রদর্শনীও হয়। সেখান থেকেই এক শিল্প সম্মেলনে যোগ দিতে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। সেটা ১৯৫০ সালের কথা। সেখানেই একের পর এক হয় তাঁর চিত্র প্রদর্শনী—নিউইয়র্ক, ওয়াশিংটন, শিকাগো ও বোস্টনে। এরপর লন্ডনে তাঁর চিত্র প্রদর্শনী হয়। ইউরোপজুড়ে কুড়িটির মতো চিত্র প্রদর্শনী হয় তাঁর। পাবলো পিকাসো, সালভাদর দালির মতো বিখ্যাত চিত্রকরদের অাঁকা ছবির সঙ্গে সুলতানের ছবি প্রদর্শিত হয়। কিছুটা আন্তর্জাতিক খ্যাতি জোটে সুলতানের কপালে। কিন্তু সে পর্যন্তই। বাংলাদেশের মানুষ তখনো তাঁর গুণের খবর পায়নি।

১৯৫৩ সালে ঢাকায় ফেরেন সুলতান। ঢাকায় একটা চাকরির খোঁজও করেন। কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি ছিল না বলে ঢাকায় চাকরি মেলেনি। ফিরে যান নড়াইলে নিজের গ্রামে। নিজের এলাকায় একটা স্কুল প্রতিষ্ঠা করার খুব ইচ্ছা। তার জন্য ভালো একটা জায়গা চাই। সুলতান গ্রামকে, প্রকৃতিকে ভালোবাসেন। গ্রামে প্রকৃতির খুব কাছাকাছি হোক স্কুলটা, সুলতান তা-ই চাচ্ছিলেন। অনেক সন্ধান করেন। চাচুড়ী ও পুরুলিয়া গ্রামের মাঝামাঝি জায়গায় একটা ভাঙা জমিদারবাড়ির খোঁজ পান। সেটা সুলতানের পছন্দ হয়। স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত করেন ‘নন্দনকানন প্রাথমিক বিদ্যালয়’ এবং ‘নন্দনকানন ফাইন আর্টস স্কুল’। পরে আর্ট স্কুলটি বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু প্রাথমিক বিদ্যালয়টি এখনো চালু আছে ‘চাচুড়ী পুরুলিয়া প্রাথমিক হাইস্কুল’ নামে। আর্ট স্কুলটা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরে অনেকটা অভিমান নিয়েই সুলতান চলে যান নড়াইলে। সেখানেই চলে তাঁর শিল্পচর্চা।

তাঁর ছবিতে গ্রামীণ সমাজের প্রকৃতি ও কৃষকদের জীবনচিত্রই উঠে এসেছে বারবার। বাংলার মাঠ, ফসলের খেত, টলটলে নদী, দাঁড় বাওয়া মাঝি, মাছ শিকারি জেলে, গাঁয়ের বধূ এবং বলিষ্ঠ কৃষকের ছবি এঁকেছেন তিনি পরম মমতায়। কৃষকদের ছবি তিনি এঁকেছেন পেশিবহুল শক্তিশালী পুরুষের রূপে। এদেশের কৃষকরা মোটেও তাঁর ছবির মতো শক্তিমান পুরুষ ছিলেন না সেকালে। কিন্তু যে কৃষকেরা আমাদের অন্ন জোগান, দেশের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি যাঁরা, তাঁদের সুলতান বলিষ্ঠ, শক্তিশালী করে অাঁকতেই ভালোবাসতেন। শুধু কৃষকেরা নয়, গাঁয়ের গৃহিণীদেরও তিনি বলিষ্ঠ চেহারায় এঁকেছেন। অবশ্য দুটো নেতিবাচক ছবিও তিনি এঁকেছেন। সেই ছবি দুটো হলো হত্যাযজ্ঞ ও চর দখল। এঁকেছেন বন্যায় বিপর্যস্ত মানুষের ছবিও।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যাঁর এতগুলো চিত্র প্রদর্শনী হয়ে গেছে, ঢাকার শিল্পসমাজে তিনি অচেনাই রয়ে যান ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত। এর একটা বড় কারণ তাঁর ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগহীনতা। আসলে শহুরে জীবন কখনোই সুলতানের ভালো লাগেনি। ঢাকায় এসে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার তাগিদও তাঁর ছিল না। ১৯৭৬ সালে ঢাকার শিল্পসমাজে এস এম সুলতানের স্বীকৃতি মেলে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি তাঁর অাঁকা ছবি নিয়ে একটা প্রদর্শনীর আয়োজন করে সে বছর। এরপর থেকেই দেশব্যাপী এই মহান শিল্পী ব্যাপক পরিচিতি পান।

এস এম সুলতান ছবি অাঁকতেন জলরং ও তেলরঙে। কিন্তু তাঁর কাগজ আর রঙের মান ছিল খুব সাধারণ। কিছু কিছু ছবি তিনি কয়লা দিয়েও এঁকেছেন। তাই তাঁর অনেক ছবিই নষ্ট হয়ে গেছে। এ বিষয়ে সুলতান সচেতনও ছিলেন না। সুলতান শুধু শিল্পীই ছিলেন না, তিনি সংগীত ভালোবাসতেন। খুব ভালো বাঁশি বাজাতে পারতেন। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের বীজ ছড়িয়ে দিতে যশোরে প্রতিষ্ঠা করেন ‘একাডেমি অব ফাইন আর্টস কলেজ’। এখন সেটা ‘চারুপীঠ’ নামে পরিচিত।

১৯৮১ সালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ‘ম্যান অব অ্যাচিভমেন্ট’ সম্মাননা প্রদান করে। বাংলাদেশ সরকার তাঁকে স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদকে ভূষিত করে। ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি তাঁকে ‘আর্টিস্ট অব রেসিডেন্ট’ ঘোষণা করে। ১৯৯৪ সালে ঢাকার ‘গ্যালারি টোন’-এ শেষবারের মতো তাঁর চিত্র প্রদর্শনী হয়। সে বছরের ১০ অক্টোবর তিনি যশোরে মৃত্যুবরণ করেন।

কিশোর আলো থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন