বিজ্ঞাপন

কিন্তু চ্যালেঞ্জ যখন দিয়েই দিয়েছে, পিছু হটা তো আর যায় না। তাই আমিও তখন বলে দিলাম চ্যালেঞ্জ অ্যাকসেপ্টেড। তো শুরু হয়ে গেল আমাদের প্রতিযোগিতা। তখন সেখানে আমাদের কিছু বন্ধু উপস্থিত ছিল। তাদের মধ্যে জ্ঞানী ফারাহ বিচারক হিসেবে কাজ করল। আমি কিআটা হাতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উল্টেপাল্টে দেখে নিলাম। মনটা পুরোই আনন্দিত হয়ে উঠল। বইয়ের ভেতরে কত মজার মজার গল্প–উপন্যাস আর ছড়া। আরও কত কী। আর তার পাশে নানা রকমের রঙিন ছবি ছাপানো। দেখে মনটা রঙিন হয়ে উঠল। তারপর শুরু করলাম বই পড়া। এভাবে কখন যে দুই ঘণ্টা শেষ হয়ে গেল টেরই পেলাম না। তারপর দুজনের কিআ জমা দিলাম ফারার কাছে। প্রথমে বলা শুরু করল অন্তরা। সে প্রায় হুবহু বলল। তারপর বললাম আমি। এখন সময় এসেছে ফলাফল জানানোর। আমি আর অন্তরা প্রায় একই রকম বলেছিলাম, তাই আমাদের হার–জিত হিসাব করা হলো সময় দিয়ে। আমরা যখন বলছিলাম, তখন আমাদের বলার সময় রেকর্ড করা হয়েছিল। ফারাহ বলল, অন্তরার বলতে সময় লেগেছে ৫১ মিনিট ২০ সেকেন্ড আর আমার বলতে সময় লেগেছে ৫১ মিনিট ৫২ সেকেন্ড। সেদিন সবাই জেনেছিল আমি অন্তরার কাছে হেরে গিয়েছি। সে জন্য অনেকে অনেক কটূক্তি করেছে। তবে সে কটূক্তি আমার হৃদয়ে আঘাত হানতে পারেনি। কারণ, আমি জানি আমি সেদিন বিজয়ী হয়েছিলাম। সেদিন কিআ পড়ার কারণে আমার কিআ আর গল্প-উপন্যাসের প্রতি আগ্রহ বেড়ে যায়। আর তারপর থেকে সেই আগ্রহের টানে পড়ে ফেলি অসংখ্য গল্প–উপন্যাসের বই। সেদিনের পর থেকে শর্ত পূরণের জন্য অন্তরাকেও কিআ কিনে দিই আর আমার নিজের জন্যও কিআ কিনি। এখন পর্যন্ত আমার কাছে ৪৪টি কিআর সংখ্যা আছে। এখন পর্যন্ত কিআ আর আমি একসঙ্গে পার করেছি ৪ বছর। ধন্যবাদ কিআ, প্রতি সংখ্যায় আমাকে এত সুন্দর অনুভূতি দেওয়ার জন্য। আর জন্মদিনে তোমাকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা। সুখে–দুঃখে সব সময় পাশে থেকো আমাদের।

কিশোর আলো থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন