বিজ্ঞাপন

একদিন প্রিয় সাইকেলটি নিয়ে ঠিক বেরিয়ে গেলেন। তবে সেই যাত্রা ছিল প্রত্যাশার চেয়ে ছয় মাস বেশি। দেড় বছর পর জার্মানিতে ফিরে ভাবলেন, কাজে যোগ দেবেন। ভাবলেন বিয়েথা সেরে সংসারী হবেন। কিন্তু এক বছরের মাথায় তিনি বুঝতে পারলেন, আর দশজন যেভাবে ভাবছেন, তিনি যেন তার ব্যতিক্রম। এই জীবনসংসার স্টুকের জন্য নয়। তিনি যা চান, তা এই জীবন নয়।

default-image

রোমাঞ্চ থেকে বিশ্বযাত্রা

১৯৬২ সাল। হাইঞ্জ স্টুকের বয়স তখন ২২ বছর। জীবন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তটা নিয়ে ফেলেছেন তত দিনে। বিশ্বভ্রমণে বেরোবেন। এক জার্মান কোম্পানির কাছে উপহার পেয়েছেন দুই হাতলের সাইকেলটি। ক্যালেন্ডারের পাতায় দিন, ৪ নভেম্বর। বেরিয়ে পড়লেন অজানাকে জানতে।

সাইকেলে ছুটে চলছেন এ শহর থেকে ও শহর, এক দেশ থেকে অন্য দেশে। বাহন হিসেবে সাইকেল তখনই জনপ্রিয় হয়েছে বটে, তবু একজন সাইকেলে চেপে দেশান্তরি হয়েছেন, এটা জেনেই অনেকের যেন চক্ষু চড়কগাছ। তা ছাড়া আস্ত বাড়িঘরসমেত এক লোক পথে পথে ঘুরছে (বাড়িঘর নয়তো কী, সাইকেলের সামনে–পেছনে তিনটি ব্যাগে প্রায় ৫০ কেজি ওজনের জিনিসপত্র থাকত)। সে–ও তো এক বিস্ময়!

একদিন প্রিয় সাইকেলটি নিয়ে ঠিক বেরিয়ে গেলেন। তবে সেই যাত্রা ছিল প্রত্যাশার চেয়ে ছয় মাস বেশি। দেড় বছর পর জার্মানিতে ফিরে ভাবলেন, কাজে যোগ দেবেন। ভাবলেন বিয়েথা সেরে সংসারী হবেন। কিন্তু এক বছরের মাথায় তিনি বুঝতে পারলেন, আর দশজন যেভাবে ভাবছেন, তিনি যেন তার ব্যতিক্রম।

১৯৬২ সালেই পৌঁছে গেলেন আফ্রিকা মহাদেশে। আফ্রিকার দেশগুলো ঘুরতে থাকলেন। ১৯৬৪ সালে তাঁর দেখা মিলল দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউন শহরে। তত দিনে জাপানের টোকিওতে অলিম্পিক আসর শুরু হয়েছে। স্টুকের ইচ্ছা ছিল অলিম্পিক দেখতে জাপানে আসবেন। কিন্তু তিনি মুখোমুখি আর্থিক সংকটের। বেশি দেশ ভ্রমণ করতে মোটা অঙ্কের টাকা দরকার। কেপটাউনে বসেই এত দিনে তোলা ছবিগুলো নিয়ে প্রকাশ করলেন পুস্তিকা। সেই পুস্তিকা ফেরি করে বিক্রি করতে থাকলেন। কয়েক দিন বেশ কিছু আয়ও হলো। সেই আয়ের টাকায় সাইকেল নিয়ে ছুটলেন দক্ষিণ আমেরিকায়।

default-image

এরপর অর্থ জোগানোর জন্য প্রতিটি দেশেই হাজারখানেক পুস্তিকা বিক্রি করেছেন। প্রথম ১০ বছর মাত্র এক হাজার ডলারের মধ্যে অতিসাধারণ জীবন চালিয়ে নিতেন স্টুক। দিনে দিনে সাইকেলই হয়ে উঠল তাঁর পাসপোর্ট, বিজনেস কার্ড। দেশে দেশে তোলা ছবিগুলো প্রকাশ হতে থাকল খ্যাতনামা পত্রিকায়, লিখতে শুরু করলেন ভ্রমণকাহিনিও। ছবি আর লেখার সম্মানীও যোগ হলো আয়ের উৎস হিসেবে। অনেক সময় পেতেন অনুদান। যাযাবর জীবনের উৎকৃষ্ট উদাহরণ হয়ে উঠলেন হাইঞ্জ। 

পথে পথে কত ঘটনাই না ঘটতে থাকল তাঁর জীবনে। চিলির আতাকামা মরুভূমিতে আহত হলেন ট্রাকের আঘাতে, মিসরে পিটিয়ে সংজ্ঞাহীন করল দেশটির সেনারা, রাষ্ট্রবিরোধী কাজের মিথ্যা অভিযোগে ক্যামেরুনের সেনাবাহিনীর হাতে আটক হলেন, কানাডায় গাড়ির ধাক্কায় এক বরফ জমাট নদীতে পড়ে গিয়ে হাসপাতালে থাকতে হলো, যুক্তরাষ্ট্রে এক মোটরগাড়ির চালক পথে নামিয়ে দেওয়ার কথা বলে সবকিছু ছিনিয়ে নিলেন, জিম্বাবুয়েতে বিদ্রোহীদের দ্বারা গুলিবিদ্ধ হলেন, মোজাম্বিকে নদীতে গোসল করার সময় একঝাঁক মৌমাছি এসে আক্রমণ করল।

২০১০ সাল পর্যন্ত টানা ৪৮ বছর ধরে তিনি বিশ্বের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত চষে বেড়িয়েছেন। সাইকেলে মাড়িয়েছেন প্রায় সাড়ে ছয় লাখ কিলোমিটার পথ। এই পথে তাঁর সাইকেলের চাকা ঘুরেছে ১৯৬টি স্বাধীন দেশে। এ ছাড়া ঘুরে বেড়িয়েছেন ৭৮টি ভূখণ্ড। এই দীর্ঘ যাত্রায় ছয়বার সাইকেল হারিয়েছেন। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো, প্রতিবারই তিনি সাইকেলটি ফেরত পেয়েছেন।

হাইঞ্জ স্টুকের বাস এখন জার্মানিতেই। বয়স ৮০ ছুঁইছুঁই। বয়স বেড়েছে বটে, কিন্তু সাইকেলপ্রীতি একটুকু কমেনি। এখনো হুটহাট সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন শহরের পথে। এই সাইকেলই যে তাঁর জীবন! 

তথ্যসূত্র: হাইঞ্জ স্টুক ডটকম, দ্য টেলিগ্রাফ, ট্রাভেলিং টু ও উইকিপিডিয়া।

কিশোর আলো থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন