আমি মনোযোগ দিয়ে চাঁদের খেলা দেখছিলাম। এ কথা শুনেই আঁতকে উঠে তার দিকে তাকাতেই দেখি সে দুই হাতে মুখ চেপে হাসছে। সেই হাসার কোনো শব্দ নেই, শরীরটা শুধু খানিক দোলে। আমার চোখে চোখ পড়তেই এক দৌড়ে চলে গেল সে। আমি কিছু বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছিলাম না। শুধু বুঝতে পারছিলাম আজ রাতে কিছু একটা ঘটবে।

কিছুক্ষণ পর আমি সেখান থেকে উঠলাম। আমার দুই চোখ ঘুমে বন্ধ হয়ে আসছিল। আমি বিছানায় গিয়ে শুয়ে পড়লাম। একটু পরই মাথার নিচে একটা ঠান্ডা অনুভূতি পেলাম আমি। ঘুমে ঢুলু ঢুলু চোখে মাথার নিচে তাকাতেই চমকে উঠলাম। একটা বাদামি রঙের সাপ মাথার নিচে কুণ্ডলী পাকিয়ে শুয়ে আছে!

প্রথমে ভাবছিলাম আমি স্বপ্ন দেখছি। নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। তারপর আমি ‘সাপ! সাপ! বাঁচাও! বাঁচাও’ বলে চিৎকার করলাম। তাড়াহুড়া করতে গিয়ে মশারির সঙ্গে শরীর পেঁচিয়ে আছাড় খেলাম মাটিতে। চিৎকার শুনে সাপটার কাছে যেতেই হাসিতে ফেটে পড়ল সবাই। আমি শুধু অবাক হয়ে তাদের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। ঘটনাটা কী বুঝতে পারছিলাম না।

আসলে সাপটা ছিল রাবারের। আমার কাজিনরা সাপটা ডিপ ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে বালিশটা বদলে তার জায়গায় রেখে দিয়েছিল।

লেখক: অষ্টম শ্রেণি, ময়মনসিংহ জিলা স্কুল, ময়মনসিংহ

কিশোর আলো থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন