default-image

রাফি স্কুল থেকে ফিরেই ভিডিও গেমস খেলা শুরু করে। পড়ার ফাঁকে সুযোগ পেলেই সে কম্পিউটার চালু করে একটু গেম খেলে নেয়। রাফি শুধু ভাবে, এমন যদি হতো, ভিডিও গেম খেললে কেউ বকবে না। এমনকি স্কুলেও খেলতে দেওয়া হতো ভিডিও গেমস। কত ভালোই না হতো!

হয়তো রাফির মতো ছেলেমেয়েদের কথা ভেবেই পোল্যান্ড সরকার নিল দারুণ একটি পদক্ষেপ। প্রথমবারের মতো ভিডিও গেমকে সে দেশে অ্যাকাডেমিক শিক্ষার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তার মানে শিক্ষার্থীরা এখন ভিডিও গেমও পড়বে! ভিডিও গেমের পরীক্ষাও দেবে!

পোল্যান্ডের শিক্ষা মন্ত্রণালয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০২০–২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘দিজ ওয়ার অব মাইন’ নামক ভিডিও গেমটি সিলেবাস হিসেবে বাধ্যতামূলক করেছে। এটি পোলিশ গেম ডেভেলপার কোম্পানি ‘১১ বিট স্টুডিও’র তৈরি করা একটি যুদ্ধভিত্তিক গেম। অন্যান্য যুদ্ধের গেম থেকে অনেকটাই আলাদা এই গেমটি। প্রথম সারির যোদ্ধাদের বদলে এই গেম খেলতে হয় সাধারণ নাগরিক হিসেবে। ১৯১২ সালে সংঘটিত বলকান অঞ্চলের যুদ্ধ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বানানো হয় গেমটি। যেখানে মূল লক্ষ্য যোদ্ধা হিসেবে শুধু যুদ্ধ করাই নয়, বরং খাদ্য ও ওষুধ সরবরাহ করে যুদ্ধে ভিন্নভাবে নিজের অবদান রাখা। শিক্ষার্থীদের সামাজিকতা, নৈতিকতা ও ইতিহাস শিক্ষার উদ্দেশ্যে গেমটি ফ্রি সরবরাহ করার ঘোষণা দেয় ইউরোপিয়ান ভিডিও গেম ইন্ডাস্ট্রির সদস্য স্পাইডর। সৃজনশীলতা, সংস্কৃতি ও শিক্ষায় ভিডিও গেমের উপকারিতা বুঝে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পোল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন স্পাইডরের প্রধান ডমিনিকা উরবানস্কা-গালানচাক। 

default-image

ইউরোপিয়ান ভিডিও গেম ইন্ডাস্ট্রির প্রধান সাইমন লিটল পোল্যান্ড সরকারের এই পদক্ষেপে বেশ খুশি হয়েছেন। তিনি মনে করেন, একবিংশ শতাব্দীতে শিক্ষাক্ষেত্রে ভিডিও গেমের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। যেখানে বর্তমানে অনেক শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ের কার্যক্রমগুলোতে উৎসাহ পায় না, সেখানে এই কৌশল শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় আরও উৎসাহ জাগাবে এবং তাদের সৃজনশীল করে তুলবে। 

পোল্যান্ডে প্রথমবারের মতো শিক্ষাক্ষেত্রে ভিডিও গেম বাধ্যতামূলক করলেও সুইডেন ও অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে পড়াশোনায় আগেই ভিডিও গেম যুক্ত হয়েছিল। এ ছাড়া আয়ারল্যান্ডের অধিকাংশ বিদ্যালয়ে শিশুদের সহিংসতামূলক ভিডিও গেম থেকে বিরত রাখার জন্য ‘মাইনক্রাফট’ গেমটিকে শিক্ষাক্ষেত্রে যুক্ত করা হয়েছে। 

ভাবতেই কত মজা লাগছে, ভিডিও গেমের হোমওয়ার্ক করে নিয়ে যেতে হবে বিদ্যালয়ে। শিক্ষক যখন প্রশ্ন করবেন, ‘কে কে হোমওয়ার্ক করেছ?’ তখন একসঙ্গে হাত তুলবে ক্লাসের সবাই।

তথ্যসূত্র : টকস্পোর্ট, মেড ফর মামস

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন