বিজ্ঞাপন

তবে ফিনিয়াসের এই শাস্তিকে যথেষ্ট বলে মনে করলেন না সূর্যের দেবতা হেলিওস। তিনি ফিনিয়াসের কষ্টকে আরও বাড়িয়ে তোলার চেষ্টা করলেন। এই কাজে তিনি নিয়োজিত করলেন ডানাওয়ালা হারপিসকে। ফিনিয়াস বেঁচে থাকার চেষ্টায় কষ্টেসৃষ্টে নিজের জন্য যে খাবার জোগাড় করে আনত, সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে খারাপগুলো রেখে বাকি সব খাবার চুরি করে আনতে শুরু করল হারপিস। ভালো খাবার যাতে ফিনিয়াস খেতে না পারে এবং খারাপ খাবার খেয়ে কোনোরকমে যাতে সে বেঁচে থাকে, সে জন্য এই ব্যবস্থা। তবে শুধু এটাই নয়, আরও যত রকমে পারা যায়, ফিনিয়াসকে তত রকমে কষ্ট দেওয়াই হয়ে উঠল হারপিসের কাজ। এমন দুঃখকষ্টের মধ্যে বেঁচে থাকাটাই দায় হয়ে উঠল ফিনিয়াসের জন্য।

এমন কষ্টের দিনে ওই দ্বীপের কাছ দিয়ে জাহাজে চেপে যাচ্ছিল জ্যাসন আর তার সঙ্গী নাবিকের দল। তাদের সেই সমুদ্রযাত্রা ছিল ভীষণ বিপদাপদে ভরা। এরই মধ্যে ওই দ্বীপের কাছে জাহাজ ভেড়াল তারা। দ্বীপে নেমে তারা দেখা পেল ফিনিয়াসের। অন্ধ লোকটাকে দেখে তাদের খুব মায়া হলো। সেখানেই তারা জানতে পারল হারপিসের উৎপাতের কথা। এবার তারা ঠিক করল, হারপিসকে ধরে ফেলবে। কিন্তু কী করে ধরবে? তারা বুদ্ধি করে একটা ফাঁদের ব্যবস্থা করল, যাতে তাকে আটকানো যায়। কিন্তু ভাগ্য খারাপ। ফাঁদে আটকাতে পারল না তাকে। তার যে ডানা আছে! যে–ই না তাকে ফাঁদে ফেলতে যায়, অমনি সে উড়ে পালিয়ে যায়। তাহলে কী করা যায়? বুদ্ধি খাটিয়ে জ্যাসন তার দলের এমন দুজনকে ডেকে আনল, যাদের পিঠে ডানা আছে। আবার ঘটনাচক্রে তারাও ছিল বোরিয়াসের ছেলে। অর্থাৎ, তারা ফিনিয়াসের প্রথম স্ত্রী ক্লিওপেট্রার ভাই এবং ফিনিয়াসের অন্ধ করে দেওয়া ছেলেদের মামা। তবে এত দিন ধরে ফিনিয়াস যে সাজা ভোগ করেছে, তাতে তার প্রতি কিছুটা মায়া জন্মেছে তাদের। তারা ভাবল, ফিনিয়াস যে অন্যায় করেছে, তার সাজাও তো কম পায়নি। একে নিজে অন্ধ হয়েছে। তার ওপর মানুষের সমাজ থেকে বহু দূরে একাকী নির্জন দ্বীপে বসবাস করতে হচ্ছে । এ ছাড়া একা একা যে সামান্য খাবারদাবার জোগাড় করে আনতে পারছে, তারও বেশির ভাগই চুরি হয়ে যাচ্ছে। তাই তারা হারপিসকে ধরার ব্যাপারে সাহায্য করতে এগিয়ে এল। যে–ই না হারপিস এল, অমনি তাকে ধরতে এগিয়ে গেল তারা। তারপর পালানোর চেষ্টা করতেই তারা উড়ে তাকে ধাওয়া করে ধরে ফেলল। বহু চেষ্টা করেও মুক্ত হতে পারল না হারপিস। তখন ডানা ঝাপটাতে ঝাপটাতে উড়ে এল তার বোন আইরিস। এই আইরিস কিন্তু সাধারণ কেউ ছিল না। সে ছিল আসলে রংধনুর দেবী। তার মা মেঘপরি ইলেকট্রা, আর বাবা থমাস সাগরপুত্র। মেঘ থেকে সমুদ্র, আর সমুদ্র থেকে মেঘের মধ্যে চোখের পলকে উড়ে যাওয়ার ক্ষমতা ছিল তার। এভাবেই সোনালি ডানায় ভর করে মেঘ ও সমুদ্রের মধ্যে সেতুবন্ধ তৈরিতে জুড়ি ছিল না তার। আজও রংধনু দেখে স্বর্গ ও মর্ত্যের মধ্যে সেই যোগাযোগের কথাটাই মনে পড়ে।

default-image

তো, সেই আইরিস এসে প্রথম প্রথম ভয় দেখিয়ে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করল বোনকে। কিন্তু বোরিয়াসের ছেলেরা তাদের ছাড়ল না। তখন সে এই বলে বোঝাল যে হারপিস তো আর নিজের ইচ্ছায় এ কাজ করেনি, সে করেছে দেবতার আদেশ মানতে গিয়ে। তবু তারা ছাড়ল না হারপিসকে। তখন সে এমন একটা দোহাই দিল, যা এড়ানোর সাধ্য তাদের ছিল না। পাতাল ঘেঁষে চলে যাওয়া স্টিক্স নদীর দোহাই দিল বা এই নদীর নামে শপথ নিল আইরিস। এ বড় কঠিন শপথ। দেবতারা এই নদীর নামেই শপথ নিতেন। আর এই শপথে অবিশ্বাস কেউই করত না। কারণ, শপথ করে মিথ্যে বললে তাকে পেতে হতো কঠিন সাজা। তা ছাড়া দেবালয় থেকে জিউস অনেকবার আইরিসকে পাঠিয়ে স্টিক্সের জল পর্যন্ত আনিয়েছেন। কাজেই আইরিসের এই শপথে তারা বিশ্বাস রাখল যে হারপিস আর কোনো দিনও ফিনিয়াসকে উপদ্রব করবে না। এভাবেই উটকো বিপদ থেকে বাঁচার উপায় হলো তার।

বোনকে মুক্ত করার জন্য আইরিস এত বড় শপথ নিয়েছিলেন বলেই গ্রিক পুরাণে এই ঘটনাকে বোনের প্রতি ভালোবাসার একটি আদর্শ উদাহরণ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।

এই কাহিনির শিক্ষা: মন্দ কাজের পরিণতি ভালো হয় না। আর ভালোবাসার টানে মানুষ কঠিন কাজ করতেও পিছপা হয় না।
ফিচার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন