রেজওয়ান অসহায়ের মতো আশপাশে তাকাল। সবাই মন দিয়ে লিখছে। কেউ কেউ মনোযোগ দিয়ে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে আছে। পুরো হলে দুটো পরীক্ষকুড্রোন উড়ে বেড়াচ্ছে। ড্রোনগুলোর চোখ ফাঁকি দিয়ে আশপাশের কারও সাহায্য নেওয়া সহজ নয়।

অন্যদের যেন সমস্যা না হয়, সে জন্য মিরিহিরিহিরির সঙ্গে কথোপকথন চালাতে হবে মেসেজের মাধ্যমে। কিন্তু রেজওয়ান লিখবে কী?

এমন সময় টুং করে শব্দ হলো। স্ক্রিনে একটা মেসেজ ভেসে উঠেছে। সর্বনাশ! মিরিহিরিহিরি নিজেই কথোপকথন শুরু করেছে। এখন এপাশ থেকে একটা কিছু না বলতে পারলে ব্যাপারটা মোটেই ভালো দেখাবে না।

স্ক্রিনে কতগুলো সংখ্যা দেখা যাচ্ছে। একেকটা একেক রঙের।

default-image

এর মানে কী!

রেজওয়ানের পাশে বসেছে চম্পা। ক্লাসে সবাই ওকে চাম্পু বলে ডাকে। রেজওয়ান চট করে দেখে নিল, আশপাশে কোনো ড্রোন নেই। তারপর চাপা গলায় চম্পার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করল।

‘শশশ্...হুশ হুশ! চাম্পু! অ্যাই চাম্পু! চাম্পু! একটু শোন না! চাম্পু...’

বেশ কয়েকবার ডাকাডাকির পর চম্পা ফিরে তাকাল। চাপা গলায় বলল, ‘কী?’

স্ক্রিনটা হালকা একটু বাঁকা করে চম্পাকে মেসেজটা দেখাল রেজওয়ান। ভ্রু নাচিয়ে ইশারায় জিজ্ঞেস করল, এর মানে কী?

আড়চোখে চম্পা ভালো করে মেসেজটা দেখল। আঙুলের কর গুনে কী যেন হিসাব করল। তারপর কাগজে কিছু একটা লিখে কাগজটা আলতো একটু উঁচু করে ধরল।

রেজওয়ান দেখল, চম্পা লিখেছে, ‘HELLO REZWAN’।

আরে! মিরিহিরিহিরি ওর নাম জানে! অদ্ভুত তো!

যাক, একটা বাক্যের মানে অন্তত বোঝা গেছে। কিন্তু তারপর? রেজওয়ান পাল্টা মেসেজটা লিখবে কী করে? মহাবিপদ! এদিকে ড্রোন দুটো মৃদু ঘড়ঘড় শব্দ করে উড়ে বেড়াচ্ছে।

রেজওয়ান আবার চাপা গলায় ডাকল, ‘চাম্পু! চাম্পু শোন! চাম্পু! হিশ হিশ! ভাষাটা বুঝব কী করে? সূত্রটা কী? অ্যাই চাম্পু!’

চম্পা মনে হলো খুবই বিরক্ত। ইশারায় সে বলার চেষ্টা করল, ‘ধ্যাত, ঝামেলা করিস না তো।’

রেজওয়ান নাছোড়বান্দা। ‘চাম্পু! প্লিজ দোস্ত। বল না! চাম্পু! এই চাম্পু!’

এদিকে মিরিহিরিহিরির আকৃতি একবার বড় হচ্ছে, ছোট হচ্ছে। মুহূর্তে মুহূর্তে রং বদলে যাচ্ছে। ব্যাটা কী করছে, কী বলছে আর কী ভাবছে, বোঝার উপায় নেই।

রেজওয়ান ইশারায় চম্পাকে বলার চেষ্টা করল, ‘তোকে আইসক্রিম খাওয়াব। প্লিজ বল। প্লিজ দোস্ত।’

এবার মনে হয় চম্পার খানিকটা দয়া হলো। ‘উফ’ টাইপের একটা শব্দ করে সে কাগজে ঘচঘচ করে একটা কিছু লিখল। তারপর কাগজটা উঁচু করে দেখাল।

চম্পা লিখেছে

A B C D
E F G H
I J K L
M N O P
Q R S T
U V W X
Y Z

ধুর ছাতা! এই বিপদের সময় চম্পা তাকে এ বি সি ডি শেখানো শুরু করল কেন? ভাবল রেজওয়ান। প্রশ্নটা যখনই সে চম্পাকে করতে যাবে, তখনই একটা ড্রোন উড়ে এসে ওদের দুজনের মাঝখানে স্থির হয়ে ভাসতে থাকল। এর অর্থ হলো ব্যাটা বিষয়টা টের পেয়েছে। উফ! এখন উপায়?

রেজওয়ান টের পেল, তার পেটে চাপ বাড়তে শুরু করেছে। কিন্তু আধা ঘণ্টার পরীক্ষায় বাথরুমে যাওয়ার নিয়ম নেই। এমন সময় আবারও টুং করে শব্দ, আবার একটা মেসেজ দেখা গেল স্ক্রিনে। এবার মিরিহিরিহিরি লিখেছে—

default-image

মহা জ্বালা! ব্যাটা বলে কী!

চুল খামছে ধরে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকল রেজওয়ান। কী বলছে মিরিহিরিহিরি?

উত্তর

মিরিহিরিহিরি বলেছে: WHO IS CHAMPU

একেক লাইনের একেক রং। সংখ্যা দিয়ে বোঝানো হয়েছে একেকটা বর্ণ। অর্থাৎ গোলাপি রঙের ৩ মানে হলো ড, কালো রঙের ৪ অর্থ হলো ঐ। এভাবে বাকিগুলো মিলিয়ে নাও।

A(1) B(2) C(3) D(4)—লাল
E(1) F(2) G(3) H(4)—কালো
I(1) J(2) K(3) L(4)—নীল
M(1) N(2) O(3) P(4)—সবুজ
Q(1) R(2) S(3) T(4)—হলুদ
U(1) V(2) W(3) X(4)—গোলাপি
Y(1) Z(2)—বেগুনি

‘HELLO REZWAN’ বুঝলেই তুমি বাকিটা বুঝতে পারবে।

গল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন