default-image

‘ডি-লা-গ্রান্ডি মেফিসটোফিলিস। ইয়াক, ইয়াক’ অদ্ভুত কিছু শব্দ মনে হলেও টেনিদা পড়ার পর এগুলোই মনে হবে তোমার কাছে পরিচিত শব্দগুচ্ছ। ব‌ই পড়লে মনে হবে যেন তুমি নিজেই প্যালারাম। মনে হবে যেন ঘুরে বেড়াচ্ছ ঝান্টি পাহাড়ে, ঝাডি বাংলোয় কিংবা ডুয়ার্সের জঙ্গলে। ভারতের নানা স্থানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সঙ্গে টেনিদা ও পটলডাঙার বাকি তিন মূর্তির যাবতীয় কীর্তি-কাহিনির সঙ্গে মজার সব অভিযানের গল্প পেতে হলে পড়তে হবে নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়ের টেনিদা সমগ্র, যাতে আছে পাঁচটি উপন্যাস, বত্রিশটি ছোটগল্প এবং একটি কৌতুক নাটিকাসহ জলজ্যান্ত টেনিদাকে নিয়ে দারুণ কৌতূহলী একটি সাক্ষাৎকার। দেখো, নাওয়াখাওয়া বাদ দিয়ে টেনিদা পড়ে আবার জলজ্যান্ত হাসপাতাল হয়ে যেয়ো না। তাহলে কিন্তু পটল দিয়ে শিঙ্গি মাছের ঝোল আর বাসক পাতার রস‌ই হবে প্রতিদিনের খাদ্য।

বিজ্ঞাপন
জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন