default-image

বড় বোন হিমিকা (ছদ্মনাম) ঠিক বুঝতে পারে না ইনানকে (ছদ্মনাম)। বোনটা খুবই আদর করে তাকে। সে-ও ভীষণ ভালোবাসে একমাত্র আপুকে। কিন্তু মাঝেমধ্যেই আপু কেমন যেন খেপে যায় অল্পতেই। সাধারণ একটা কথা বললেই ধমকে ওঠে, বিরক্ত হয়। মাঝেমধ্যে আবার কথাই বলে না একেবারে। অথচ এমনিতে সারা দিন পুরো বাড়িটা মাতিয়ে রাখে হিমিকা আপু। তাই আপুর মন খারাপ হলে যেন পুরো বাড়িটাই নিস্তব্ধ হয়ে যায়। ইনান বুঝতেই পারে না মাঝেমধ্যে কেন এমন করে তার বোন।

তোমাদের মধ্যে অনেকেই আছো যারা এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হও প্রতিনিয়ত। আর এমন মনে হওয়াটা মোটেই অস্বাভাবিক কিছু নয়। মেনস্ট্রুয়েশনের সময়টায় শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যেতে হয় কিশোরীদের। ফলে স্বাভাবিকভাবেই তাদের আচরণে আসে নানা ধরনের পরিবর্তন। তাই একটা জিনিস সব সময় মনে রাখতে হবে। এ সময়টায় কিশোরীদের যেন আমরা ভুল না বুঝি। বরং তাদের স্বাস্থ্যের প্রতি সব সময় খেয়াল রাখতে হবে আমাদের।

বিজ্ঞাপন

এর আগে কিশোরীদের কেন কখন কীভাবে মেনস্ট্রুয়েশন হয়, সে সম্পর্কে জেনেছি আমরা। জেনেছি এ সময় থেকে ২৮ দিনের চক্রে রক্তে ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টেরন হরমোনের ওঠানামা কীভাবে চলতে থাকে। লেখাটা প্রকাশিত হওয়ার পর তোমাদের কাছ থেকে বেশ সাড়া পেয়েছি আমরা। বিষয়টি নিয়ে তোমাদের সচেতন করার জন্য চিঠি লিখে ধন্যবাদ জানিয়েছ তোমরা। জানিয়েছ তোমাদের ভেতরে দানা বেঁধে থাকা প্রশ্ন, দ্বিধার কথা।

আমরা জানি, প্রথম প্রথম মেনস্ট্রুয়েশন শুরু হওয়ার পর কিশোরীরা বেশ কিছু ঝামেলার মধ্যে পড়ে। এর মধ্যে একটা হলো প্রি–মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম বা পিএমএস। কঠিন মনে হচ্ছে? সহজ করে বলি তাহলে।

প্রি–মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম বা পিএমএসের মানে হলো মেনস্ট্রুয়েশনের বিশেষ তারিখটি এগিয়ে আসতে থাকলে তার ঠিক আগে আগে শরীর খারাপ লাগতে থাকে কারও কারও। বিজ্ঞানীরা বলেন, প্রতি চারজনের মধ্যে তিনজন মেয়েরই মেনস্ট্রুয়েশনের আগের কয়েকটা দিন খুব বিশ্রী লাগে। তোমাদের মধ্যেও নিশ্চয় কারও কারও লাগে এ রকম। কিন্তু তোমাদের অনেকেই হয়তো বুঝে উঠতে পারো না যে কেন এমন লাগছে। একটু মিলিয়ে নাও দেখি।

বিজ্ঞাপন
default-image

পিএমএসের সাধারণ উপসর্গগুলো হলো হঠাৎ করে খুব মেজাজ খারাপ লাগতে থাকা, মেজাজের ওঠানামা, বিষণ্নতা, কান্না পাওয়া, হঠাৎ কোনো কিছু খাওয়ার ইচ্ছা খুব বেড়ে যাওয়া, বিশেষ করে মিষ্টি বা চকলেট–জাতীয় খাবারের প্রতি তীব্র আগ্রহ লক্ষ করা যায় অনেকের মধ্যেই। কারও পেটটা একটু নরম হয়, কারও আবার কোষ্ঠকাঠিন্যও হতে পারে। পেটব্যথাও করতে পারে কারও কারও। ব্রেস্টে ব্যথা বা চিন চিন অনুভূতি হতে পারে। মাথাব্যথা, হাত–পায়ের পেশি কামড়ানো, ক্লান্তি বোধ, ব্রণ বেড়ে যাওয়া এসবও হতে পারে। তোমাদের মধ্যে কেউ কেউ এ সময় মায়ের সঙ্গে কারণে–অকারণে চেঁচামেচি শুরু করো। কেউ আবার বন্ধুর সঙ্গে তুচ্ছ কোনো কারণে অভিমান বা ঝগড়া করে কথা বন্ধ করে দিতে পারো। সামান্য বিষয়ে তুলকালাম কাণ্ড করে ফেলাও অস্বাভাবিক নয়। পরে হয়তো কী করেছি ভেবে নিজেই অবাক ও লজ্জিত হও। মনে রাখবে, এতেও অবাক হওয়ার কিছু নেই। আবারও বলি, এটা সেই হরমোনের খেলা। আগেই বলেছিলাম যে একবার পিরিয়ড হয়ে যাওয়ার পর থেকে আবার ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা পুনরায় বাড়তে থাকে নতুন একটি ডিম্বাণুর বৃদ্ধির জন্য। ১৪তম দিনে গিয়ে ডিম্বাণুর চূড়ান্ত বিকাশ ঘটে। এরপর হঠাৎ ইস্ট্রোজেনের পরিবর্তে এবার প্রজেস্টেরনের মাত্রা অতিরিক্ত বেড়ে যায়। পিরিয়ডের ঠিক আগে আগে দুটো হরমোনই আবার দুম করে যায় কমে। এই হরমোনের আকস্মিক ওঠানামা মস্তিষ্ক থেকে সেরোটনিন নামের একটি নিউরোট্রান্সমিটারের মাত্রাকে প্রভাবিত করে। আর এর ফলেই মনমেজাজের ঠিক থাকে না। কিছুই ভালো লাগে না। শরীরটাও খারাপ লাগে খুব।

পিরিয়ডের পাঁচ দিন আগে থেকে শুরু হতে পারে এই খারাপ লাগা। পিরিয়ড শুরু হওয়ার চার দিন পর্যন্ত থাকতে পারে। প্রতিবার এই সময়টাতেই তোমার এই সমস্যাগুলো হয় কি না, সেটা খেয়াল করে দেখো। যদি দেখো এটা সেই তারিখের সঙ্গেই জড়িত, তবে এসব নিয়ে চিন্তা কিংবা ভয়ের কিছু নেই। এগুলো আরও অনেকেরই হয় এবং এতে তুমি ধীরে ধীরে অভ্যস্ত হয়ে উঠবে; বরং তুমি যদি এই ব্যাপারটা নিয়ে খুব বেশি দুশ্চিন্তা করো বা অস্থিরতা প্রকাশ করো, তবে সমস্যা আরও বাড়বে।

তোমাদের মনে হতে পারে, তাহলে আমাদের কি কিছুই করার নেই? নিশ্চয়ই আছে। চলো দেখা যাক, এই সময় এই খারাপ লাগা কমাতে তুমি কী কী করতে পারো:

প্রথমেই তোমার খাদ্যাভ্যাসে একটু পরিবর্তন আনতে হবে। লবণ বা বেশি লবণযুক্ত খাবার এ সময় না খাওয়াই ভালো। আমি জানি, মিষ্টি, চকলেট এসব খেতে খুব ইচ্ছে করবে তোমাদের। কিন্তু এগুলো খেলে সমস্যাটা আরও বাড়বে; বরং জটিল শর্করা খেতে চেষ্টা করো। রুটি, ওটস, কর্নফ্লেক্স এ ধরনের খাবার হলো জটিল শর্করা। তবে একবারে বেশি খেয়ে ফেলো না আবার। এতে পেট ফেঁপে যায়। অল্প অল্প করে ভাগ করে খাও। ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবার খেতে চেষ্টা করো। যেমন: দুধ, দই, পনির, পালংশাক ইত্যাদি। ম্যাগনেসিয়াম আছে বাদাম বা পিনাট বাটারে—এটাও খেয়ে দেখতে পারো। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে পানি। প্রচুর পানি পান করতে হবে এ সময়টায়। কফি না খাওয়াই ভালো।

বিজ্ঞাপন

• দুশ্চিন্তা ঝেড়ে ফেলো। রিল্যাক্স থাকতে চেষ্টা করো। গান শোনো বা বই পড়ো কিংবা চলচ্চিত্র দেখো। পোষা প্রাণী কিংবা গাছপালার যত্ন নাও। দেখবে ভালো লাগবে। পর্যাপ্ত পরিমাণ বিশ্রাম নাও। ও আরেকটা কথা, রাত জেগো না একদমই।
• রিল্যাক্স থাকার জন্য শরীরচর্চা করলে উপকার পাবে। কিছু ব্রিদিং এক্সারসাইজ আছে—ওগুলো করে দেখতে পারো। যোগব্যায়ামও মন্দ নয়।
• কারও কারও পেট ব্যথা করে তলপেট কামড়ে ধরে। তারা আইবুপ্রোফেন বা ন্যাপ্রক্সেন–জাতীয় ওষুধ খেতে পারো দু–একটা। তবে অবশ্যই বাবা-মাকে না জানিয়ে নয়। আর সবচেয়ে বড় কথা, ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কখনোই কোনো ওষুধ খেয়ো না কিন্তু। আর হ্যাঁ, যদি দেখো কোনো কিছুতেই কোনো কাজ হচ্ছে না, কিংবা তোমার যদি বেশি মন খারাপ লাগে বা খুবই মেজাজ চড়ে থাকে সব সময়, তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করবে। কেননা অনেক সময় বিষণ্নতা বা ডিপ্রেশন আমরা টের পাই না, কিন্তু এই প্রি–মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোমের সময়ই ধরা পড়ে সেটা। আর ডিপ্রেশনের তো আধুনিক চিকিত্সা আছে তাই না?

কোনো সমস্যাই—তা শারীরিক হোক বা মানসিক, লুকিয়ে পুষে রাখার কোনো মানে হয় না।

লেখক : চিকিৎসক

মডেল : স্পর্শ ও নওশিন, ছবি : সুমন ইউসুফ

মন্তব্য পড়ুন 0